মঙ্গলবার, ১৬ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

গাইবান্ধায় রেজিস্ট্রেশন ছাড়াই অনেক ডায়াগনস্টিক সেন্টার চালু থাকার অভিযোগ

মো. নজরুল ইসলাম, গাইবান্ধা প্রতিনিধি
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনার পরেও গাইবান্ধা সদর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় রেজিস্ট্রেশন ছাড়াই অনেক ডাগায়নস্টিক সেন্টার চালু রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এর মধ্যে সদর উপজেলার হাট দারিয়াপুরের তেঁতুল তলা মোড়ে আর.এস সুপার মার্কেটে অবস্থিত দারুস সালাম ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও শহরের মাতৃসদন সংলগ্ন সানিলা ডায়াগনস্টিক সেন্টার অন্যতম। এই ডায়াগনস্টিক সেন্টারে একজন ডাক্তারও বসেন। তিনি মঙ্গল ও শুক্রবার নিয়মিত রোগী দেখেন।
অভিযোগে জানা গেছে, সারাদেশে রেজিস্ট্রেশনবিহীন অবৈধ ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধের জন্য সময়সীমা বেঁধে দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সেই সময়সীমা শেষ হয় ২৯ মে। পরেরদিন থেকে অবৈধ ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে অভিযানে নামে কর্তৃপক্ষ। গাইবান্ধায়ও বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালিত হয়। এই অভিযানের মধ্যেও দারুস সালাম ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টার চালু রয়েছে। এই সেন্টারে সারিয়া সুবাহ অর্থি নামে একজন ডাক্তার বসেন। তিনি মঙ্গল ও শুক্রবার নিয়মিত রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে থাকেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এ ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তিনি মোবাইল ফোনে এ প্রতিবেদককে বলেন, কোথাও বসা, না বসা আমার বিষয়।
এব্যাপারে গাইবান্ধার সিভিল সার্জন ডা: আ. ম. আখতারুজ্জামান বলেন, একজন ডাক্তার কোনো অবৈধ ডায়াগনস্টিক সেন্টারে বসতে পারেন না। এটা ডাক্তার হিসেবে তো তারই দেখার কথা যে সেই ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বৈধতা আছে কিনা? তিনি আরও বলেন, দারুস সালাম ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে এর আগেও অনেক অভিযোগ পেয়েছি। এ বিষয়ে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক আশরাফুল ইসলাম বলেন, তিনি রেজিস্টেশনের জন্য আবেদন করেছেন, এখন তার প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। গত শুক্রবার ডাক্তার সাহেব সুন্দরগঞ্জের মাঠেরহাটে তার নানার বাড়ি যাওয়ার পথে অল্প সময়ের জন্য তার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে বসেছিলেন বলে তিনি জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সর্বশেষঃ