সোমবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

দশমিনায় সেতু নেই,বাঁশের সাকোতে পারপার দূর্ভোগে ১৪ হাজার মানুষ

দশমিনা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার ০৭নং চরবোরহান ইউনিয়নের কার্যক্রম ৫ বছরের অধিক সময় অতিক্রম করলেও রাস্তাঘাটের তেমন উন্নতি হয়নি। ইউনিয়নের লঞ্চ ঘাট থেকে শুরু করে চরশাহজালাল খেয়াঘাট পর্যন্ত ১৩ কিলোমিটার রাস্তার মধ্যে ৩ কিলোমিটার কার্পেটিং করা হয়। বাকী রাস্তা দিয়ে চলাচলে চরাঞ্চলবাসীর দূর্ভোগের যেন শেষ নেই। এর মধ্যে ০২ কিলোমিটার হেড়িংবন্ড রাস্তার কাজ শুরু হবে জেনেও হতাশ ইউনিয়নবাসী। কারন এই ১৩ কিলোমিটার প্রধান সড়কের মধ্যে লোকমান গাজীর খাল ও দক্ষিন চর শাহজালাল চাঁদপুরাখাল সহ ৩টি খালে নেই কোন সেতু। প্রতিনিয়ত জীবন ঝুকি নিয়ে বাঁশের সাকো দিয়ে ৫ টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ১টি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ০৩ শতাধিক শিক্ষার্থী সহ হাজারো ইউনিয়নবাসীকে পার হতে হয়। বর্ষাকালে খালে পানির স্রোতে মাঝে মাঝে বাঁশের সাকো ভেঙ্গে গিয়ে ঘরবন্দি হয়ে পরে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সহ সাধারণ মানুষজন। চরাঞ্চলের কৃষকদের উৎপাদিত পন্য হাটে বাজারে নিতে কিংবা অসুস্থ্য কোন রোগীকে চিকিৎসার জন্য নিতে গিয়ে সীমাহীন দূভোর্গ পোহাতে হয়।
এই বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ নজির আহমেদ সরদার বলেন, ইউনিয়নে এখন ১৪ হাজারের বেশী মানুষ বসবাস করছে। ইউনিয়নের একমাত্র সড়ক চরবোরহান লঞ্চ ঘাট থেকে চরশাহজালাল খেয়াঘাট পর্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ১৩ কিলোমিটার সড়ক দিয়ে প্রতিদিন হাজারো মানুষ চলাচল করে। কিন্তু এই রাস্তার ০৩টি খালে কোন সেতু না থাকায় ইউনিয়নবাসীকে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তাই সংশ্লিষ্ট মহলের কাছে এলাকাবাসীর দাবী, যাতে ৩টি খালে অতি দ্রুত চলাচলের জন্য ব্রীজের ব্যবস্থা করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সর্বশেষঃ