শুক্রবার, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত কুখ্যাত রাজাকার নজরুলকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরের নরঘাতক, নারী নির্যাতনকারী কুখ্যাত রাজাকার নজরুলকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। মানবতাবিরোধী অপরাধের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল কর্তৃক মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত কুখ্যাত রাজাকার নজরুল ইসলাম দীর্ঘদিন গ্রেফতার এড়িয়ে পালিয়ে বেড়িয়েছে। এতেও তার শেষ রক্ষা হয়নি। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার দুপরে র‍্যাবের হাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে নজরুল ধরা পড়ে। তার বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি হত্যাসহ, নির্যাতন, অপহরণ, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগসহ বিভিন্ন অভিযোগ প্রমানিত হয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে।

মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় জামায়াত নেতা মো. রেজাউল করিম মন্টুসহ নওগাঁর তিন আসামিকে মৃত্যুদন্ড দিয়ে রায় ঘোষণা করেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বিচারিক প্যানেল মঙ্গলবার এ রায় দেন। আসামিদের বিরুদ্ধে ছিলেন প্রসিকিউটর আবুল কালাম আজাদ। আসামি পক্ষে ছিলেন  আব্দুস সাত্তার পালোয়ান। ২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। তদন্তে ৩১ জনের সাক্ষ্য রেকর্ড করা হয়েছে। এ মামলায় আসামি ছিলেন চারজন। তারা হলেন, নওগাঁর মো. রেজাউল করিম মন্টু, মো. নজরুল ইসলাম, মো. শহিদ মন্ডল ও মো. ইসহাক। তবে এর মধ্যে মো. ইসহাক (৬২) তদন্ত চলার সময়ই গ্রেফতার অবস্থায় মারা যায়। ২৬ এপ্রিল এ তিনজনের বিষয়ে উভয় পক্ষে শুনানি শেষে মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষামান (সিএভি) রাখা হয়েছিল।

মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলা বিচারে গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে এটি ৪৬ তম রায়। তদন্ত সংস্থা জানায়, আসামি মো. রেজাউল করিম মন্টু ১৯৮৬ থেকে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত জামায়াতে ইসলামী জয়পুরহাট জেলার আমির ছিল। মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিল। ওই সময় থেকেই তিনি জামায়াতের রাজনীতিতে সক্রিয় ছিল। মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি নিজ বাড়িতে চলে আসে এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে অস্বীকার করে পাকিস্তানি দখলদার বাহিনীকে সহযোগিতা করার জন্য সশস্ত্র রাজাকার বাহিনীতে যোগ দেয়। ১৬ ডিসেম্বর দেশ স্বাধীন হলে সে আত্মগোপন করে। বাকীরাও জামায়াতের সমর্থক। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে আসামিরা নওগাঁর বদলগাছী থানায় অপরাধ সংঘটন করে। আসামিদের বিরুদ্ধে সাতজনকে হত্যাসহ অবৈধভাবে আটক, নির্যাতন, অপহরণ, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ ধ্বংস করার অভিযোগ আনা হয়।

রাজাকার নজরুলকে গ্রেফতারের বিষয়টি র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার সহকারী পরিচালক আ.ন.ম ইমরান খান গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সর্বশেষঃ